বগুড়ায় ছাত্রলীগ-স্বেচ্ছাসেবক লীগে দফায় দফায় সংঘর্ষ, আহত ১০

নিউজ ডেস্কনিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:০০ PM, ০১ জুন ২০২১

বগুড়ার শেরপুরে সরকার দলীয় দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার (১জুন) দুপুরে শেরপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে।

আহতরা হলেন- পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৌরভ আহম্মেদ সুমন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মানিক সেখ, তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ফেরদৌস জামান বাবু, মোহাম্মদ রনিসহ ছয়জন।

অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর বদরুল ইসলাম পোদ্দার ববির ছেলে আবির আহম্মেদ বনি, খালিদ হাসান, হৃদয় হাসানসহ চারজন আহত হয়েছেন।

আহতদের মধ্যে ফেরদৌস জামান বাবু ও আবির আহম্মেদ বনি বগুড়ায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানা গেছে।মামলার বাদী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মানিক সেখ বলেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে সোমবার (৩১ মে) দুপুরে শহরের বাসস্ট্যান্ডে হাসান নামে এক ছেলেকে মারধর করেন আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে বনিসহ বেশকয়েকজন যুবক। তাকে উদ্ধারে এগিয়ে গেলে আমাকেও লাঞ্ছিত করা হয়। একপর্যায়ে মার্কেটের ব্যবসায়ীসহ উত্তেজিত জনতার ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে যান তারা।

বিকেলে তার ফের সংগঠিত হয়ে ওই মার্কেটের সামনে সশস্ত্র মহড়া দিয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর চালায়। এসময় বাধা দিতে গেলে দোকানকর্মচারী ফেরদৌস জামান বাবুকে উপর্যুপরি ধারালো চাকু ও রাম-দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। তাকে উদ্ধারে গেলে আমাদেরও ছুরিকাঘাত করে আহতরা হয়।

ঘটনা সম্পর্কে জানতে অভিযুক্ত আবির আহম্মেদ বনির সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার বাবা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল ইসলাম পোদ্দার ববি বলেন, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে তার ছেলে বনির সঙ্গে হাসানের কথাকাটাকাটি হয়। এর জেরে সোমবার দুপুরে মারপিটের ঘটনা ঘটে।

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বলেন, হামলা-ভাঙচুরের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ উভয়পক্ষকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সেই সঙ্গে আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করে।

তিনি আরও বলেন, এসময় ঘটনাস্থল থেকে তিনটি ধারালো অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। এ ঘটনায় মানিক সেখের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :